ঢাকা শুক্রবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৮



গাজীপুরে পোশাক কারখানায় নারীশ্রমিককে গলা কেটে হত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট: গাজীপুরে এক পোশাক কারখানায় বুধবার রাতে ওই কারখানার এক নারী শ্রমিককে গলা কেটে হত্যা করেছে তার প্রাক্তন স্বামী। নিহতের নাম মিতু আক্তার (২৩)। সে বাগেরহাট জেলার জিওধরা এলাকার মহারাজ হাওলাদারের মেয়ে।

কোনাবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের ইন্সপেক্টর মোবারক হোসেন ও কারখানার শ্রমিকরা জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাশিমপুরের দক্ষিণ জরুন এলাকার আনিসুল হকের বাড়িতে স্বামী সোহেলকে নিয়ে ভাড়া থেকে স্থানীয় ডেল্টা অ্যাপারেলস লিমিটেড নামের পোশাক কারখানার ফিনিশিং সেকশনে কাজ করতো মিতু। সোহেল স্থানীয় ইসলাম পোশাক কারখানার শ্রমিক। বনিবনা না হওয়ায় স্বামীর সঙ্গে মিতুর প্রায় দেড়মাস আগে বিচ্ছেদ হয়। বিচ্ছেদের পর তারা আলাদা বাসায় বসবাস করতে থাকে। বুধবার নির্ধারিত সময়ের পর সন্ধ্যা হতে মিতু কারখানায় অতিরিক্ত সময়ে (ওভার টাইম) কাজ করছিল। এসময় সোহেল সেখানে এসে মিতুকে কারখানার ফ্লোর থেকে ডেকে ৬তলার সিড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে সোহেল পোশাক কারখানায় ব্যবহৃত ধারালো সিজার দিয়ে মিতুর ডান হাতের গোড়ায় আঘাত করে এবং শ্বাসনালীসহ গলার অধিকাংশ কেটে ফেলে। পরে সে কারখানা থেকে দৌড়ে বেরিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে রক্তাক্ত অবস্থায় মিতুকে সিড়িতে পড়ে থাকতে কারখানার অন্য শ্রমিকরা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ঘটনার পর থেকে সোহেল পলাতক রয়েছে।

কারখানার নিরাপত্তা কর্মী সফিকুল ইসলাম জানান, মিতুকে হত্যার পর সোহেল আগুন আগুন বলে কারখানা থেকে দৌড়ে বেরিয়ে যায়।

Write a comment

Print Friendly, PDF & Email

এই বিভাগের আরও খবর


আর্কাইভ



error: Content is protected !!