ঢাকা বুধবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮



ফ্রিজের পর এবার ইন্দোনেশিয়ায় পার্টস রপ্তানি করছে ওয়ালটন

নিজস্ব প্রতিবেদক: গত দশকেও বাংলাদেশী ফ্রিজের বাজার ছিল সম্পূর্ণ আমদানি নির্ভর। ওয়ালটন দেশেই ফ্রিজ উৎপাদন শুরুর পর চলতি দশকের শুরু থেকেই হ্রাস পেতে থাকে ফ্রিজ আমদানিকারকদের দৈরাত্ব্য। অতি দ্রুত এই খাতে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উঠে বাংলাদেশ। বর্তমানে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ খ্যাত ফ্রিজ রপ্তানির মাধ্যমেও দেশের রিজার্ভে যোগ হচ্ছে প্রচুর পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা। ওয়ালটন ফ্রিজের পর এবার শুরু করলো ফ্রিজের যন্ত্রাংশ রপ্তানি। ইন্দোনেশিয়ায় রপ্তানি হচ্ছে ওয়ালটনের তৈরি ফ্রিজের যন্ত্রাংশ। চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়ে গেছে পণ্যবাহী জাহাজ

ওয়ালটন সূত্রমতে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র ও বিশ্বের বৃহত্তম মুসলিশ দেশ ইন্দোনেশিয়ার কাছ থেকে বাংলাদেশে তৈরি ফ্রিজের বিভিন্ন কাঁচামাল বা যন্ত্রাংশের বৃহৎ রপ্তানি আদেশ পাওয়া গিয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে গত সপ্তাহে ফ্রিজের খুচরা যন্ত্রাংশ বোঝাই জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ইন্দোনেশিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছে। রপ্তানিকৃত পার্টসের মধ্যে রয়েছে ফ্রিজের প্রাণ হিসেবে খ্যাত কম্প্রেসার, রেফ্রিজারেটর ডোর বা দরজা, রেফ্রিজারেটর ডোর হিন্জ, ড্রয়ার, ডোর প্লাস্টিক সেল্ফ, রেফ্রিজারেটর কেবিনেট বডি, পাওয়ার ক্যাবল ও প্ল্যাগ, পলি ব্যাগ, পলি ফোমসহ কার্টুন প্যাকেজ বক্স।
ওয়ালটনের আন্তর্জাতিক বিপণন বিভাগের প্রধান রকিবুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশ থেকে বিশ্ব মানসম্পন্ন ফ্রিজ ইতোমধ্যে এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে। এবার ওয়ালটন তথা বাংলাদেশের মিশন হলো- বিশ্ববাজারে ফ্রিজের আনুষঙ্গিক কাঁচামাল ও যন্ত্রাংশ রপ্তানি। ইন্দোনেশিয়ায় রপ্তানির মধ্য দিয়ে এই মিশন শুরু হলো। অচিরেই উন্নত দেশগুলোতে পৌঁছে যাবে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ খ্যাত ওয়ালটনের তৈরি ফ্রিজের যন্ত্রাংশ।

জানা গেছে, গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজে রয়েছে আন্তর্জাতিকমানের ফ্রিজ উৎপাদন কারখানা। যেখানে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও মেশিনারিজের সমন্বয়ে উচ্চ গুণগতমানের রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজার তৈরি হচ্ছে। সেখানে নিয়মিত গবেষণার মাধ্যমে তৈরি হচ্ছে ব্যাপক বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার প্রযুক্তির ফ্রস্ট ও নন-ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটর, টেম্পারড গ্লাস ডোরের রেফ্রিজারেটর, আইওটি বেজড মুঠোফোনে নিয়ন্ত্রণযোগ্য স্মার্ট রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজার।

ওয়ালটনের পণ্য গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের প্রকৌশলীরা জানান, তারা বিশ্বের লেটেস্ট প্রযুক্তিতে অসংখ্য বৈচিত্র্যময় ডিজাইনের ফ্রিজের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় আনুষঙ্গিক যন্ত্রাংশও তৈরি করছেন। নিজস্ব কারখানায় তৈরি করছেন বিশ্বের লেটেস্ট প্রযুক্তির কম্প্রেসার। ইউরোপিয়ান প্রযুক্তির অটোমেটিক কাটিং সম্বলিত এক্সট্রুশন মেশিন, অটোমেটিক ম্যাগনেট ইন্সার্টশন মেশিন, ওয়েল্ডিং মেশিনসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতির সমন্বয়ে নন-থ্যালেট প্লাস্টিসাইজারে তৈরি করছেন ফ্রিজের দরজায় ব্যবহৃত গ্যাসকেট, গ্যাসস্ট্রিপ ও ম্যাগনেটিক স্ট্রিপ। আরো তৈরি হচ্ছে ফ্রিজের ক্যাবিনেট, ড্রয়ার ও অভ্যন্তরীন সেলফ বা তাকসহ আনুষঙ্গিক অন্যান্য যন্ত্রাংশ।

ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম বলেন, বিশ্বের অনেক গ্লোবাল ব্র্যান্ডই নিজস্ব কারখানায় ফ্রিজের আনুষঙ্গিক সব যন্ত্রাংশ তৈরি করে না। তারা বিভিন্ন দেশ থেকে এসব যন্ত্রাংশ আউটসোসিং করে থাকে। কিন্তু ওয়ালটন কারখানায় পূর্ণাঙ্গ ফ্রিজের পাশাপাশি তৈরি হচ্ছে আনুষঙ্গিক পার্টসও। এতে একদিকে যেমন নিজস্ব তত্ত্বাবধানে আন্তর্জাতিকমান বজায় রেখে ফ্রিজ উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে। অন্যদিকে বিভিন্ন দেশের ফ্রিজ উৎপাদন কারখানায় এসব যন্ত্রাংশ রপ্তানিও করা যাচ্ছে। এরফলে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের প্রযুক্তি পণ্য উৎপাদন খাতের ইমেজও বৃদ্ধি পাচ্ছে।
শিল্প সংশ্লিষ্টদের মতে, ইলেকট্রনিক্স পণ্যের স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি বৈশ্বিক বাজারেও নতুন দিগন্তের সূচনা করছে ওয়ালটন। ওয়ালটনের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগ বর্তমান সরকারের ২০২১ সালের মধ্যে ৬০ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানি আয়ের রূপকল্প বাস্তবায়নের পথকে আরো সুগম করছে।

ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ জানায়, আন্তর্জাতিক বাজারে শক্ত অবস্থান তৈরি করতে বিভিন্ন দেশে কোম্পানি ও ব্র্যান্ড নিবন্ধন এবং তাদের স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী সার্টিফিকেশন অর্জনের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বৈশ্বিক ক্রেতাদের সাথে যোগসূত্র স্থাপনের উদ্দেশ্যে অংশ নেয়া হচ্ছে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মেলায়।
#

Write a comment

Print Friendly, PDF & Email

এই বিভাগের আরও খবর


আর্কাইভ



error: Content is protected !!