ঢাকা বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২০



গাজীপুরে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের গুজবে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

ডেস্ক রিপোর্ট: গাজীপুর সিটি করপোরেশনের তারগাছ এলাকায় অনন্ত ক্যাজুয়াল ওয়্যার লিমিটেড নামে একটি কারখানার শ্রমিক ছাঁটাইয়ের গুঞ্জনে বিক্ষোভ করেছেন শ্রমিকরা। শনিবার (২ মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিক্ষোভ এবং ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক প্রায় এক ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন শ্রমিকরা।

কারখানার কর্মী ও শ্রমিকরা জানায়, বিশ্বব্যাপী করোনা সংক্রমণের কারণ দেখিয়ে কর্তৃপক্ষ ১১ এপ্রিল কারখানা লে-অফের ঘোষণা দেয়। উৎপাদিত পণ্যের আন্তর্জাতিক বাজার মন্দা ও শ্রমিক-কর্মীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে কারখানা ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত লে-অফ থাকবে বলে জানানো হয়।

সম্প্রতি শ্রম মন্ত্রণালয় থেকে শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হলেও কারখানার মালিক সেই নির্দেশনা মানছে না বলে জানান শ্রমিকরা। গত ১১ এপ্রিল কারখানার মহাব্যবস্থাপক (মানবসম্পদ ও প্রশাসন) মুনির আহমেদ স্বাক্ষরিত একটি নোটিশ দেন। নোটিশে লেখা ছিল, পুনরায় কারখানা লে-অফ রাখার মেয়াদ বাড়ানো হলো।

কারখানায় কর্মরত, কর্মচারী ও শ্রমিকরা জানান, বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে করোনা ভাইরাসের সংক্রমিত হয়ে মহামারিতে রূপ নিয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক ক্রেতারা তাদের অনেক ক্রয়াদেশ বাতিল করেছেন। শ্রমিকদের মধ্যে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক বিরাজ করছে। যার কারণে শ্রমিকদের নিরাপত্তার ও স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনা করে কারখানা চালু রাখা কোন ভাবেই সম্ভব হচ্ছে না। পুরো বিষয়টি কারখানা কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত। এমন পরিস্থিতিতে কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয়ে ৪ মার্চ পর্যন্ত কারখানা লে-অফ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিল। পরে কর্তৃপক্ষ দেশের সার্বিক পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা করে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত কারখানা লে অফ রাখার মেয়াদ বাড়ায়। বর্তমানে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় ও সরকারি নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে কারখানার কর্তৃপক্ষ পুনরায় গত ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত লে-অফ রাখার মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

শিল্প পুলিশ ও শ্রমিকরা জানান, সরকার দেশে কারখানা সীমিত পরিসরে খুলে দেওয়ার ঘোষণা দিলে ওই কারখানাটি গত ২৪ এপ্রিল থেকে চালু করা হয়। কারখানার শ্রমিক রয়েছে প্রায় ৩ হাজার। তবে শুরুতে কারখানার সব শ্রমিক কাজে যোগ না দিলেও অর্ধেকের বেশি শ্রমিক কাজ শুরু করেন। কারখানা চালু হওয়ায় সকালে নতুন করে আরও প্রায় শত শত শ্রমিক কাজে যোগ দিতে গেলে তাদের ভেতরে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়। এ সময় শ্রমিকদের মধ্যে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের খবর ছড়িয়ে পড়ে। পরে শ্রমিকরা সকাল ৮টা থেকে কারখানার প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এক পর্যায়ে উত্তেজিত শ্রমিকরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এতে সড়কটির উভয় পাশে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

অনন্ত ক্যাজুয়াল ওয়্যার লিমিটেড কারখানার উৎপাদন শাখার মো. আমিনুর রহমান জানান, কারখানার প্রায় তিন হাজার শ্রমিক রয়েছে। বর্তমানে কাজ করছেন দেড় থেকে দুই হাজার শ্রমিক। বাকিদের কারখানায় ডুকতে না দেওয়ায় শ্রমিকদের মধ্যে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের গুঞ্জন শুরু হয়। এ কারণে শ্রমিকরা বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করেন।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার  জানান, কারখানার কোনো শ্রমিক ছাঁটাই করা হয়নি। সরকারি নির্দেশনা মানতে গিয়ে স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য অর্ধেক শ্রমিকদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। কিন্তু বাকি যারা কাজ করছেন না তারা পুরো বেতন পাবে না। শ্রম আইন অনুয়ায়ী ৬০ শতাংশ বেতন পাবেন। যার কারণে শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সৌজন্যে: বাংলা নিউজ

Comments


আর্কাইভ