ঢাকা সোমবার, মে ১৬, ২০২২



এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে “নারী কি চায়?” শীর্ষক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট: আসন্ন আর্ন্তজাতিক নারী দিবস ও জেন্ডার সমতার ক্ষেত্রে তৈরি মাইলফলক উপলক্ষ্যে অনুষ্টানমালার অংশ হিসেবে তিন দেশের নারী রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘ সহ আর্ন্তজাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে আর্ন্তজাতিক বিশ্ববিদ্যালয় এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে জাতিসংঘের সংস্থা ইউএন উইমেন এর সহযোগিতায় “নারী কি চায়?” শীর্ষক কনফারেন্স রুফটপ কনফারেন্স হলে ৪ মার্চ ২০২০ অনুষ্ঠিত হয় ।

এতে আলোচনার মূল বিষয় ছিল নারীর ক্ষমতায়ন,জেন্ডার সমতায়ন এবং তরুণ নারী নেতৃত্ব । বিভিন্ন দেশের নারী রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘ সহ বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক সংস্থার নারী প্রধানদের সমন্বয়ে এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হয় । দুইপর্বে বিভক্ত কনফারেন্সের শুরুতে প্যানেল আলোচনায় ও পরবর্তীতে মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহন করেন প্রতিনিধিরা । এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের শিক্ষার্থীদের জন্য এটা ছিল অসাধারণ এক আয়োজন যেখানে তারা নারী নেতৃত্বেও এবং আর্ন্তজাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের সাথে সরাসরি কথা বলার ও বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করার সুযোগ পায় ।

জাতিসংঘের নারী বিষয়ক সহযোগী সংস্থা ইউএন – ওমেন এর বাংলাদেশের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ শুকো ইশিকাওয়া এর সঞ্চালনায় পরিচালিত প্যানেল ও মুক্ত আলোচনায় বিষয় ভিত্তিক বক্তব্য উপস্থাপন করেন রাজকীয় থাই দূতাবাসের বাংলাদেশে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত অরুনরাংগ ফুতং হামফ্রেস, বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডিস রাষ্ট্রদূত সিডসেল ব্ল্যাকেন,রয়েল নরওয়েজিয়ান দূতাবাসের বাংলাদেশে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত শার্লোটা স্কাইটার, ইউএনএফপিএ’র বাংলাদেশের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ ড.আসা টর্কেলসন, ঢাকায় নিযুক্ত ইউনেসকোর হেড অব এডুকেশন ও এডুকেশন প্রোগ্রাম স্পেশালিষ্ট সান লেই ।

শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের রেজিষ্ট্রার ড.ডেভ ডোল্যান্ড । এতে আরো উপস্থিত ছিলেন ইউএন-উইমেনের বাংলাদেশ অফিসের কমিউনিকেশন এনালিষ্ট সৈয়দা সামারা মুরতাদা ও ইউএনএফপিএ’র বাংলাদেশের ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার-কমিউনিকেশন আসমা আকতার ।

এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের যে সমস্থ শিক্ষার্থীরা কনফারেন্সেঅংশগ্রহন করে তাদের মধ্যে জেন্ডার সম্পর্কে তারা নতুন ধারনা পেয়েছে পাশাপাশি তারা নারী নেতৃত্বের বিষয়ে এবং সামাজিক পরিবর্তনে তাদের অবদান ও অংশগ্রহনের জন্য অনেক উৎসাহ পেয়েছে । আলোচকরা তাদের আলোচনায় শিক্ষার্থীদেও তাদের ক্যারিয়ার পছন্দের বিষয়ে নিজেদের লিডারশীপ উন্নয়নের জন্য আহবান জানান ।

জাতিসংঘের নারী বিষয়ক সহযোগী সংস্থা ইউএন উইমেন এর বাংলাদেশের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ শুকো ইশিকাওয়া বলেন, এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন এমন একটি অসাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেটি উৎসাহী শিক্ষার্থীদের বিষয়ে আমাদেরকে অনেক বেশী উৎসাহী করে তোলে ,এবং তাদের তারুণ্যের স্বপ্ন ও প্রত্যাশা পূরণে আমাদেরকে তাদের জন্য একটি সহায়ক পরিবেশ তৈরি করার জন্য অনেক বেশী অনুপ্রাণিত করে, পাশাপাশি আরো অনেক কিছু করার জন্য আগ্রহ সৃষ্টি করে । আমরা আসলেই তাদের নিজস্ব দায়িত্ববোধ থেকে জেন্ডার সমতায়নে কাজ করার পাশাপাশি সমাজে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার বিষয়ে তাদের নিজেদের আগ্রহ ও সচেতনতা দেখে মুগ্ধ হয়েছি ।

এই বছর ২০২০ সাল বিশ্বব্যাপী লিঙ্গ ভিত্তিক সহিংসতা ও বৈষম্য রোধে জেন্ডার সমতায়নের এক অনন্য বর্ষ । যেটি বেইজিং প্লাটফরম ফরম এ্যাকশনের মাধ্যমে বিশ্ব সম্প্রদায় নারী অধিকার রক্ষার বিষয়ে ঐক্যমতে পৌছার মাধ্যমে সৃষ্ঠ হয়েছে । এই বছরকে জেন্ডার সমতায়নের এক অনন্য বছর হিসেবে চিহ্নিত করে । যার মধ্যে রয়েছে : সহস্রাব্দের টেকসই উন্নয়ন অর্জনের লক্ষ্যে পঞ্চবার্ষিকী মাইলফলক, নারী অধিকার ,শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় জাতিসংঘ নিরাপত্তা কাউন্সিলের গৃহিত রেজুলেশন ১৩২৫ এর ২০ বছর পূর্তি ।

বাংলাদেশের মহান জাতীয় সংসদের মাধ্যমে চার্টার প্রাপ্ত এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন (এ.ইউ ডব্লিউ) ২০০৮ সালে চট্টগ্রামে যাত্রা শুরু করে । বিশ্ববিদ্যালয়টি এতদঅঞ্চলের প্রথম আঞ্চলিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যেটি আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে নারীদের শিক্ষা ও নেতৃত্ব উন্নয়ন ও বিকাশে অবদান রাখছে ,যার শেকড়ে রয়েছে এশিয়ার জনগণের আকাঙ্খা ও প্রত্যাশা ।

বাংলাদেশের মহান জাতীয় সংসদের মাধ্যমে চার্টার প্রাপ্ত এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে (এ.ইউ ডব্লিউ) । এই বিশ্ববিদ্যালয়টি এতদঅঞ্চল তথা এশিয়ার নারীদের নারী নেতৃত্ব,উদ্যোক্তা এবং সমাজ পরিবর্তনের অবদানের জন্য নারী নেটওয়ার্ক তৈরি করার জন্য অসাধারণ ভাবে সহযোগিতা করে আসছে । পাশাপাশি এটি এমন সব নারীদের জন্য কাজ করছে ,যাদের মধ্যে রয়েছে অসাধারণ শিক্ষার সম্ভাবনা, সাহসী মনোভাব এবং সকল প্রকার অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে গিয়ে সমাজ বির্নিমানে নিজেদের তৈরি করার অপার আগ্রহ ।

এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে (এ.ইউ ডব্লিউ) বর্তমানে বিশ্বের ১৯ টি দেশের ৯০০ জনের অধিক নারী শিক্ষার্থীরা অধ্যায়ন করছে । তন্মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভূটান, কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, লাওস পিডিআর, মায়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান, ফিলিস্তিন, সেনেগাল, মালয়েশিয়া,শ্রীলংকা, সিরিয়া, পূর্ব তিমুর, ভিয়েতনাম এবং ইয়েমেন। এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের ছাত্রীদের মধ্যে বেশীর ভাগই হলো তাদের পরিবারের ১ম সন্তান যে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৫% ছাত্রী এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের সাথে সম্পৃক্ত বিশ্বের বিভিন্ন সহযোগী ব্যাক্তি ও সংগঠনের প্রদত্ত স্কলারশীপের আওতায় ১০০% বৃত্তি বা প্রায় ১০০% বৃত্তি নিয়ে পড়া লেখা করে আসছে । এই পর্যন্ত প্রায় ৮০০ জনের অধিক শিক্ষার্থী এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন (এ.ইউ ডব্লিউ) হতে গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী অর্জন করেছে এবং বেশির ভাগ ছাত্রী তাদের নিজ নিজ দেশে সরকারী ও বেসরকারী ক্ষেত্রে সুনামের সাথে কাজ করে আসছে । ২৫% ছাত্রী উচ্চতর শিক্ষার জন্য সুযোগ গ্রহন করেছে। এই বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক ডিগ্রী প্রাপ্ত ছাত্রীরা বা ইতিপূর্বে অধ্যয়নরত ছাত্রীরা বিশ্বের বড় বড় নামী দামি বিশ্ববিদ্যালয় যেমন অক্সফোর্ড,স্ট্যামফোর্ড, কলম্বিয়া, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি,ডিউক, ব্র্যান্ডে,সাওে,সোয়াস,ইওয়াহা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির এবং অধ্যয়ন করার সুযোগ পেয়েছে ।

Comments


আর্কাইভ