ঢাকা, আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, এখন রাত ৯:৫২

নারায়নগঞ্জে পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের সঙ্গে মালিক পক্ষের সংঘর্ষ, প্রশাসনিক কর্মকর্তাসহ আহত ২০

নিজস্ব প্রতিনিধি : সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর শিল্পনগরীর নয়াবাড়ি এলাকায় অনন্ত ড্যানিম টেকনোলজি নামে রপ্তানিমুখী গার্মেন্ট কারখানায় ২৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে শ্রমিকদের সঙ্গে মালিক পক্ষের সন্ত্রাসীদের দফায় দফায় সংঘর্ষে সাংবাদিক, শ্রমিক ও গার্মেন্ট কর্মকর্তাসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা আশংকাজনক। আহতদের স্থানীয় ক্লিনিক ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শ্রমিকরা জানান, বকেয়া বেতন, বোনাস ও ছুটি ও অতিরিক্ত কাজের ভাতা পাওয়ার দাবীতে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে কারখানার শ্রমিকরা কারখানার ভেতরে অবস্থান নেয়। এসময় শ্রমিকরা পাওয়ার দাবী তুলে বিভিন্ন স্লোগানে বিক্ষোভ করে। এসময় কারখানার ব্যবস্থাপক (এডমিন) সুশান্ত কুমার আলেয়া আক্তার নামের নারী শ্রমিককে চর থাপ্পড় দেয়। এতে শ্রমিকেরা উত্তেজিত হয়ে ম্যানেজার সুশান্ত কুমারকে ও হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মাঈনউদ্দিন ও শ্রীলংকার নাগরিক কারখানা কর্মকর্তা প্রদীপ চন্দ্র নাথসহ ৫ জনকে পিটিয়ে আহত করেন। পরে মালিক পক্ষের সন্ত্রাসী বাহিনী স্থানীয় যুবলীগ কর্মী বাবুল, সুমন ও অহিদের নেতৃত্বে শতাধিক সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শ্রমিকদের উপর হামলা চালায়। হামলায় শ্রমিক শাহজাহান মিয়া, রুবেল মিয়া, অনুরাধা, তাছলিমা আক্তার, জাফর মিয়া, জাকিয়া বেগম, রুমা আক্তার, জোসনা আক্তার, রোকেয়া ও স্থানীয় পত্রিকার সাংবাদিক মিন্টুসহ ১৫ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা আশংকাজনক। আহতদের স্থানীয় ক্লিনিক ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে উত্তোজিত শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশ শ্রমিকদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

শ্রমিকরা আরো জানান, এ কারখানায় কোন ছুটি পাওয়া যায় না। ছুটির দিনেও মালিক কর্তৃপক্ষ কাজ করিয়ে কোন টাকা দেন না। কোন শ্রমিক অসুস্থ হলে ছুটি পাশ না করে অসুস্থতার অযুহাতে চাকুরীচ্যুত করা হয়। পবিত্র সবেবরাত রাতেও তাদের কারখানা চালু রাখা হয়। কিছুদিন আগে ম্যানেজার সুশান্ত কুমার সুমী আক্তার নামের এক নারী শ্রমিককে সামান্য ভুলের কারণে গরম ইস্ত্রী দিয়ে শরীরে বিভিন্ন স্থানে ছ্যাকা দিয়ে মারাত্বক ভাবে আহত করে।
এক নারী শ্রমিক জানান, ২০১৪ সাল থেকে তিনি এ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন। অসুস্থতার কারনে কয়েকদিন কারখানায় অনুপস্তিত থাকায় তাকে চাকরীচ্যুত করা হয়। এভাবে অনেক নিরীহ শ্রমিকদের বিনা কারনে চাকুরী থেকে বের করে দেওয়া হয়। তিনি বলেন, সাধারণ শ্রমিকদের সাথে মালিক পক্ষের লোকেরা খুব খারাপ আচরণ করে থাকে।

অনন্ত ড্যানিম টেকনলজি গার্মেন্সের জেনারেল ম্যানেজার (প্রশাসন) মেজর (অব:) সাখাওয়াত হোসেন জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে কারখানার অভ্যন্তরে বিক্ষোভ শুরু করে। এসময় কয়েকজন কর্মকর্তাকে পিটিয়ে আহত করে শ্রমিকরা। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে কারখানা ছুটি ঘোষনা করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ শিল্প পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান বলেন, তিন দফা দাবীতে বাস্তবায়নের জন্য শ্রমিকদের সঙ্গে কর্মকর্তাদের কথা কাটাকাটি এক পর্যায়ে তারা উত্তেজিত হয়ে পড়ে ফ্যাষ্টরীর অভ্যন্তরে বিক্ষোভ করে। এতে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উত্তেজিত শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিয়েছে। সুত্র : নিউজ নারায়নগঞ্জ

মন্তব্য লিখুন

এই বিভাগের আরও খবর

Find us on Facebook